অনেক অনেক যুগ আগে থেকে মানুষ শা’রীরিক সম্প’র্কে লি’প্ত হত। আর এজন্যই মানব প্রজাতির সৃষ্টি হয়েছে। আমার মনে হয় যে আগে মানুষের বিনোদন বলতে কিছুই ছিল না।

এ কারণে মানুষ অবসর সময় কা’টাতে এবং কিছুটা শা’রীরিক ও মা’নসিক চা’হিদা পূরণেই এই শা’রীরিক মি’লন করত। তবে বর্তমানে অনেকেই বলে থাকেন যে এর অনেক স্বা’স্থ্য উপকারিতা রয়েছে।

সত্যিই কি তাই, আমার তো মনে হয় এটি আরও স্বা’স্থ্যের জন্য ক্ষ’তিকর কেননা এর ফলে শ’রীর দু’র্বল হয়ে যায়, সবাই ক্লান্তি অনুভব করে থাকে। আমাকে এই বি’ষয়ে জানাবেন প্লিজ?

উত্তর:
আপনার কথার কিছু অংশ সত্য কিন্তু বাকি অংশ একেবারেই ভু’ল ধারণা। আদিম যুগে বলা চলে অবসর সময়ের বিনোদনের জন্যই শা’রীরিক মি’লন করা হয়ে থাকত তবে এর প্রয়োজনীয়তা অনুভূত হয় শা’রীরিক এবং মা’নসিক চা’হিদা থেকেই।

আপনি যেমনটা যুক্তি দেখিয়েছেন যে শা’রীরিক মি’লন করলে মানুষ ক্লান্ত হয়ে যায় সেক্ষেত্রে এর স্বা’স্থ্য উপকারিতা আদৌ আছে কি না এই বি’ষয়ে বলা যায় যে শা’রীরিক মি’লন একজনকে ক্লান্ত করে ঠিকই কিন্তু তা সাময়িকের জন্য।

আমরা শা’রীরিক ব্যায়াম করাকালীন সময়ে যেমন শা’রীরিকভাবে ক্লান্ত হয়ে পড়ি তবে এই শা’রীরিক মি’লন আমাদের শা’রীরিক গঠনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে থাকে।

ঠিক তেমনি শা’রীরিক মি’লনও শা’রীরিক ব্যায়ামের ন্যায় সাময়িকভাবে ক্লান্ত করে কিন্তু এটি নিয়মিত করলে স্বা’স্থ্যগত কিছু উপকারিতাও পাওয়া যায়।

শা’রীরিক মি’লন শা’রীরিক ব্যায়ামের মতই স্বা’স্থ্যের জন্য উপকারী। আসুন জেনে নিই এই শা’রীরিক মি’লন আমাদের স্বা’স্থ্যে কী ধরনের উপকার করতে পারে।

শা’রীরিক মি’লনের স্বা’স্থ্য উপকারিতা :
১) আপনার হা’র্টকে ভাল রাখতে পারে এই শা’রীরিক মি’লন। যার কামোদ্দীপনা ও অনুভূতি যতো বেশি জো’রালো হবে তার হা’র্ট ততো বেশি সক্রিয় ও বলিষ্ঠ হবে।

২) প্রোস্টেট ক্যা’ন্সারে আ’ক্রান্ত হওয়ার ঝুঁ’কিকে কমিয়ে দেয় শা’রীরিক সম্প’র্ক। ৩) কর্মস্থলে নিজেকে গুটিয়ে রাখার প্রবণতা থাকে না। আগের চেয়ে বেশি বহির্মুখী ভাবধারা প্রকাশ পায় সার্বিক আচরণে।

স’মস্যা সমাধানের দক্ষ’তা ও সৃজনশীলতা বাড়ে। ৪) এর ফলে আপনাকে দেখে আরও তরুণ, সজীব ও প্রা’ণবন্ত মনে হবে। কারণ এটি এক ধরনের শা’রীরিক ব্যায়ামও বলা চলে। ৫) স্বা’স্থ্যসম্মত শা’রীরিক মি’লন মা’নসিক চা’প কমাতে সাহায্য করে। ৬) মস্তিষ্ককে সজাগ ও সক্রিয় করে তোলে।

সুস্থ ও সুন্দর যৌ’ন জীবনের অনন্য স্বা’স্থ্য উপকারিতা :
বিয়ে করার কথা ভাবছেন? তাহলে বিয়েটা করেই ফেলুন। কেননা চিকিৎসকেরা বলছেন যে সুস্থ ও সুন্দর যৌ’ন জীবনের আছে হরেক রকম স্বা’স্থ্য উপকারিতা।

নি’য়মিত যৌ’ন মি’লন শ’রীরের রো’গ প্রতিরোধ ক্ষ’মতা বাড়ানোর পাশাপাশি নানান ধরনের শা’রীরিক স’মস্যা কমিয়ে ফে’লে। ফলে সুস্থ ও সুন্দর একটি যৌ’ন সম্প’র্ক গড়ে তুললে সু’খী,সুস্থ ও দীর্ঘ জীবন লাভ করা যায়। আসুন,জেনে নেয়া যাক সুস্থ যৌ’ন জীবনের ৫টি স্বা’স্থ্য উপকারিতা।

বয়স অনুপাতে স’হবাসের নিয়ম
বিভিন্ন যৌ’ন বিজ্ঞানীর বক্তব্য, বয়সের সাথে সাথে মি’লন ই’চ্ছা স্তিমিত হয়ে আসে। তবে ডঃ কিনসী এ ব্যাপারে বহু গবেষনা করে বিবা’হিত ও বয়ঃপ্রা’প্ত পুরু’ষ-না’রীর মি’লন সংখ্যা নিয়ে একটি রিপোর্ট লিখেছেন। তা হলোঃ

১) ২০ বছর সপ্তাহে ১৪ বার। ২) ২১-২৬ বছর সপ্তাহে ১২ বার। ৩) ২৬-৩২ বছর সপ্তাহে ১০ বার। ৪) ৩২-৩৮ বছর সপ্তাহে ৮ বার।
৫) ৩৮-৪৫ বছর সপ্তাহে ৭ বার। ৬) ৪৫-৫১ বছর সপ্তাহে ৫ বার। ৭) ৫১-৬০ বছর সপ্তাহে ৩ বার। ৮) ৬০+ বছর সপ্তাহে ১ বার বা সম্পুর্ন বন্ধ

অধিক সময় যৌ’ন মি’লন বা স্ত্রী স’হবাস করার কার্যকর পদ্ধতি
সাধারনত অধিক সময় নিয়ে যৌ’ন মি’লন করাটা পুরু’ষের সক্ষ’মতার উপরই নির্ভর করে। তথাপি কিছু পদ্ধতি অবলম্বন করে পুরু’ষরা তাদের মি’লনকাল দীর্ঘায়িত করতে পারেন। তবে কে কতটা দীর্ঘ সময় নিয়ে যৌ’ন মি’লন করবে এটা অনেকটাই তাদের চর্চার উপর নির্ভর করে থাকে। আসুন জেনে নিই মি’লন দীর্ঘায়িত করার কিছু পদ্ধতি।

পদ্ধতি ১:- চে’পে/টি’পে (স্কুইজ) ধরা
এই পদ্ধতিটি আবি’ষ্কার করেছেন মাষ্টার এবং জনসন নামের দুই ব্যাক্তি। চে’পে ধরা পদ্ধতি আসলে নাম থেকেই অনুমান করা যায় কিভাবে করতে হয়।

যখন কোন পুরু’ষ মনে করেন তার বী’র্য প্রায় স্থলনের পথে, তখন সে অথবা তার স’ঙ্গী লি’ঙ্গের ঠিক গোড়ার দিকে অন্ডকোষের কাছাকাছি লি’ঙ্গের নিচের দিকে যে রাস্তা দিয়ে মুত্র/বী’র্য বহিঃর্গামী হয় সে শিরা/মুত্রনালী কয়েক সেকেন্ডর জন্য চে’পে ধরবেন।

(লি’ঙ্গের পাশ থেকে দুই আ’ঙ্গুল দিয়ে ক্লিপের মত আ’টকে ধরতে হবে।)। চা’প ছেড়ে দেবার পর ৩০ থেকে ৪৫ সেকেন্ডের মত সময় বিরতী নিন। এই সময় লি’ঙ্গ সঞ্চালন বা কোন প্রকার যৌ’ন কর্যক্রম করা থেকে বিরত থাকুন।

এ পদ্ধতির ফলে হয়তো পুরু’ষ কিছুক্ষনের জন্য লি’ঙ্গের দৃঢ়তা হারাবেন। কিন্তু ৪৫ সেকেন্ড পুর পুনরায় কার্যক্রম চালু করলে লি’ঙ্গ আবার আগের দৃঢ়তা ফিরে পাবে। স্কুইজ পদ্ধতি এক মি’লনে আপনি যতবার খুশি ততবার করতে পারেন। মনে রাখবেন সব পদ্ধতির কার্যকারীতা অভ্যাস বা প্রাকটিস এর উপর নির্ভর করে। তাই প্রথমবারেই ফল পাওয়ার চিন্তা করা বোকামী হবে।

পদ্ধতি ২:- সংকোচন (টেনসিং)
এ পদ্ধতি সম্প’র্কে বলার আগে আমি আপনাদের কিছু বেসিক ধারনা দেই। আমরা প্র’স্রাব করার সময় প্রসাব পুরোপুরি নিঃস্বরনের জন্য অন্ডকোষের নিচ থেকে পায়ুপথ পর্যন্ত অঞ্চলে যে এক প্রকার খি’চুনী দিয়ে পুনরায় তলপেট দিয়ে চা’প দেই এখানে বর্নিত সংকোচন বা টেনসিং পদ্ধতিটি অনেকটা সে রকম। তবে পার্থক্য হল এখনে আমরা খি’চুনী প্রয়োগ করবো – চা’প নয়।

মি’লনকালে যখন অনুমান করবেন বী’র্য প্রায় স্থলনের পথে, তখন আপনার সকল যৌ’ন কর্যক্রম বন্ধ রেখে অন্ডকোষের তলা থেকে পায়ুপথ পর্যন্ত অঞ্চল কয়েক সেকেন্ডের জন্য প্রচন্ড শ’ক্তিতে খিচে ধরুন। এবার ছেড়ে দিন। পুনরায় কয়েক সেকেন্ডের জন্য খি’চুনী দিন। এভাবে ২/১ বার করার পর যখন দেখবেন বী’র্য স্থলনেরে চা’প/অনুভব চলে গেছে তখন পুনরায় আপনার যৌ’ন কর্ম শুরু করুন।

সংকোচন পদ্ধতি আপনার যৌ’ন মি’লনকে দীর্ঘায়িত করবে। আবারো বলি, সব পদ্ধতির কার্যকারীতা অভ্যাস বা প্রাকটিস এর উপর নির্ভর করে। তাই প্রথমবারেই ফল পাওয়ার চিন্তা করা বোকামী হবে।

পদ্ধতি ৩ :- বিরাম (টিজিং / পজ এন্ড প্লে)
এ পদ্ধতিটি বহুল ব্যবহৃত। সাধারনত সব যুগল এ পদ্ধতির সহায়তা নিয়ে থাকেন। এ পদ্ধতিতে মি’লনকালে বী’র্য স্থলনের অবস্থানে পৌছালে লি’ঙ্গকে বাহির করে ফেলুন অথবা ভিতরে থাকলেও কার্যকলাপে বিরাম দিন। এই সময় আপনি আপনাকে অন্যমনস্ক করে রাখতে পারেন। অর্থ্যৎ সু’খ অনুভুতি থেকে মনকে ঘুরিয়ে নিন।যখন অনুভব করবেন বী’র্যের চা’প কমে গেছে তখন পুনরায় শুরু করতে পারেন।

বিরাম পদ্ধতির সফলতা সম্পুর্ন নির্ভর করে আপনার অভ্যাসের উপর। প্রথম’দিকে এ পদ্ধতির সফলতা না পাওয়া গেলেও যারা যৌ’ন কার্যে নিয়মিত তারা এই পদ্ধতির গুনাগুন জানেন। মনে রাখবেন সব পদ্ধতির কার্যকারীতা অভ্যাস বা প্রাকটিস এর উপর নির্ভর করে। তাই প্রথমবারেই ফল পাওয়ার চিন্তা করবেন না।

একটা বি’ষয় প্রতিটা পুরু’ষেরই জেনে রাখা দরকার – বি’ষয়গু’লি নিয়ে অবশ্যই আপনার স্ত্রীর সাথে আলোচনা করবেন। তাতে আপনারা দু’জনেই লাভবান হবেন। আপনি আপনার স্ত্রী’কে পদ্ধতিগুলো বুঝিয়ে বলুন। দেখবেন সেই আপনাকে সাহায্য করছে। কারন সে জানে আপনি বেশি সময় নেয়া মানে তার নিজেরই লাভবান হওয়া।

ত’থ্যটি আপনার কাছে কিছুটা হলেও শিক্ষনীয় অথবা উপকারী মনে হলে, নিচের ফেইসবুক, গুগলপ্লাস, টুইটার ইত্যাদি বাটনে ক্লিক করে শেয়ার দিয়ে আপনার বন্ধুদেরও জানিয়ে দিবেন আশা রাখি। ভালো থাকুন, সুস্থ থাকুন, সুন্দর থাকুন । আ’নন্দময় হোক আপনার প্রতিটি ক্ষণ। ধ’ন্যবাদ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *